ঈদুল ফিতরের নামাজ হচ্ছে ২ রাকাত। প্রথম রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে উত্তম হচ্ছে সুরা আলা-এর তেলাওয়াত করা। অতঃপর ৫টি তাকবির উচ্চারণ করতে হবে এবং প্রত্যেকটি তাকবিরের পরে কুনুত পাঠ করতে হবে। কুনুতটি হচ্ছে নিন্মরূপ:

اللَّهُمَّ أَهْلَ الْكِبْرِيَاءِ وَ الْعَظَمَةِ وَ أَهْلَ الْجُودِ وَ الْجَبَرُوتِ وَ أَهْلَ الْعَفْوِ وَ الرَّحْمَةِ وَ أَهْلَ التَّقْوَى وَ الْمَغْفِرَةِ أَسْأَلُكَ بِحَقِّ هَذَا الْيَوْمِ الَّذِي جَعَلْتَهُ لِلْمُسْلِمِينَ عِيدا وَ لِمُحَمَّدٍ صَلَّى اللَّهِ عَلَيْهِ وَ آلِهِ ذُخْرا وَ شَرَفا وَ مَزِيدا أَنْ تُصَلِّيَ عَلَى مُحَمَّدٍ وَ آلِ مُحَمَّدٍ وَ أَنْ تُدْخِلَنِي فِي كُلِّ خَيْرٍ أَدْخَلْتَ فِيهِ مُحَمَّدا وَ آلَ مُحَمَّدٍ وَ أَنْ تُخْرِجَنِي مِنْ كُلِّ سُوءٍ أَخْرَجْتَ مِنْهُ مُحَمَّدا وَ آلَ مُحَمَّدٍ صَلَوَاتُكَ عَلَيْهِ وَ عَلَيْهِمْ أَجْمَعِينَ اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ خَيْرَ مَا سَأَلَكَ مِنْهُ عِبَادُكَ الصَّالِحُونَ وَ أَعُوذُ بِكَ فِيهِ مِمَّا اسْتَعَاذَ مِنْهُ عِبَادُكَ الْمُخْلِصُونَ

“আল্লাহুম্মা আহলাল কিবরিয়াঈ ওয়াল আজামাহ ওয়া আহলাল জুদি ওয়াল জাবারুত ওয়া আহলাল আফয়ি ওয়ার রাহ্মাহ ওয়া আহলাত তাকওয়া ওয়াল মাগফিরাহ আসআলিকা বিহাক্কি হাজাল ইয়াওমিল লাযি জাআলতাহু লিল মুসলিমিনা ঈদা ও লিহাক্কি মুহাম্মাদিন সালাল্লাহু আলাইহি ওয়া আলিহ যুখরান ওয়া শারাফান ওয়া মাযীদা আন তুসাল্লি আলা মুহাম্মাদিন ওয়া আলে মুহাম্মাদ ওয়া আন তুদখিলানি ফি কুলি খাইরান আদখালতা ফিহি মুহাম্মাদান ওয়া আলা মুহাম্মাদ ওয়া আন তুখ্রিজানি মিন কুলি সুয়েন আখরাজতা মিনহু মুহাম্মাদান ওয়া আলা মুহাম্মাদ সালাওয়াতুকা আলাইহি ওয়া আলাইহিন আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা খাইরা মা সাআলাকা ঈবাদুকাস সালিহুন ওয়া আউযু বিকা মিম্মাস তাআযা মিনহু ঈবাদুকাল মুখলেসুন”

অতঃপর তাকবির উচ্চারণ করে রুকুতে অতঃপর দুই সিজদা আদায় করতে হবে।
দ্বিতিয় রাকাতে সুরা ফাতেহার পরে মুস্তাহাব হচ্ছে সুরা শামস তেলাওয়াত করা এবং ৪ টি তাকবির রয়েছে প্রত্যেক তাকবিরের পরে উল্লেখিত কুনুতটি পাঠ করা মুস্তাহাব। অতঃপর রুকু, সিজদা, তাশাহুদ ও সালামের মাধ্যমে নামাজ শেষ করতে হবে।

শেয়ার করুন