শীয়ারা নাকি ইমাম হোসেনের (আঃ) হত্যাকারী !
ইদানীং আমাদের অনেক ওহাবী কাম সু্ন্নি ভাই অজ্ঞতায় হোক বা মাযহাবগত বিদ্বেষগত ভাবে হোক – একটি কথা প্রায়ই বলে থাকেন যে ,
কারবালা প্রান্তরে ইমাম হোসেনকে (আঃ) বার ইমামীয়া শীয়ারা হত্যা করেছিল ।
শীয়ারা তাই এখন অনুতপ্ত হয়ে শোক বা মাতম করে ।
বেশ ভাল কথা ।
প্রতিটা মানুষ স্বাধীনভাবে যে কোন কথা বলতেই পারেন ।
” —- শীয়ারাই হত্যা করেছে —– “
এই অভিযোগটি যারা করেন তাদের জ্ঞাতার্থে এই কথাটি বলছি যে –
এই কথাটি অবশ্যই সত্য যে ,কারবালার ঘটনা যখন ঘটে তখন পুরো মক্কা মদীনা সহ বিশাল ভুখন্ডে নিশ্চয়ই শীয়ারা ক্ষমতায় ছিল না ।
সত্য এটাই যে , কারবালার ঘটনা যখন ঘটে তখন পুরো মক্কা মদীনা সহ বিশাল ভুখন্ডের একমাত্র বাদশাহ ছিল জনাব ঈয়াযীদ ইবনে মূয়াবীয়া ।
ওনার রাজ্যে এত বিশাল মর্মান্তিক দুঃখজনক হত্যাযজ্ঞ সংঘটিত হয়ে গেল এবং ঐ হত্যাযজ্ঞটি করেছে শীয়ারা !
কুতর্কের খাতিরে যদি ধরেও নেই যে , শীয়ারাই কারবালাতে ইমাম হোসেনকে (আঃ) হত্যা করেছে !
তাহলে যিনি বা যারা শীয়াদের বিরুদ্বে এই অভিযোগটি করছেন তাদের উদ্দেশ্যে নীচে কয়েকটি প্রশ্ন নিবেদন করছি ।
যে সকল সুন্নি ভাইরা হরহামেশা এ কথাটি বলে থাকেন , তাদের প্রতি বিনীতভাবে কয়েকটি প্রশ্ন রইল । দয়া করে প্রতিটি প্রশ্ন গভীর মনযোগ সহকারে পড়ুন ।
আশা করি , যৌক্তিক জবাব পাব ।
প্রশ্ন ১) –
ইমাম হোসেনকে (আঃ) গুপ্তহত্যার জন্য হজ্ব চলাকালীন সময় মক্কাতে কেন গুপ্ত হত্যাকারী প্রেরন করেছিল ঈয়াযীদ ?
প্রশ্ন ২) –
কুফা নগরীতে সর্বপ্রথম শহীদ মুসলিম বিন আকিলের (আঃ) পৈচাশিক হত্যার বিচার কেন ঈয়াযীদ করে নাই ?
প্রশ্ন ৩) –
মুসলিম বিন আকিলের (আঃ) দুই শিশুপুত্রের জঘন্য হত্যাকান্ডের বিচার কেন ঈয়াযীদ করে নাই ?
প্রশ্ন ৪) –
মুসলিম বিন আকিল (আঃ) এবং তাঁর দুই পুত্রকে জীবিত ধরিয়ে দেবার জন্য বিশাল স্বর্নমুদ্রার রাষ্ট্রীয় পুরস্কার কোন ব্যক্তি ঘোষনা করেছিল ?
প্রশ্ন ৫) –
উবাইদুল্লাহ ইবনে যিয়াদকে তখন ঈয়াযীদ কেন কুফার গর্ভনর নিয়োগ করে পাঠিয়েছিল ?
প্রশ্ন ৬) –
কারবালা প্রান্তরে মাত্র ১৪০ জনের মহিলা শিশু সহ কাফেলার বিরুদ্বে প্রায় ত্রিশ হাজার বিশাল রাজকীয় সৈন্যের বহর কার হুকুমে জড়ো হয়েছিল ?
প্রশ্ন ৭) –
কারবালার ময়দানে যারা হত্যাযজ্ঞ ঘটিয়েছে তারা যদি শীয়া হয় তাহলে ঈয়াযীদ কেন সেই সকল শীয়া হত্যাকারীগনকে বিচারের আওতায় আনে নাই ?
প্রশ্ন ৮) –
বিচার তো দূরের কথা , কেন সেই সকল হত্যাকারীগনকে ঈয়াযীদ খলীফার দরবার থেকে লক্ষ লক্ষ স্বর্নমুদ্রা ও দিরহাম পুরস্কার দেওয়া হইল ?
প্রশ্ন ৯) –
ইমাম হোসেনের (আঃ) কর্তিত মস্তকের জন্য লক্ষ স্বর্নমুদ্রার পুরস্কার ঈয়াযীদ কেন ঘোষনা করেছিল ?
প্রশ্ন ১০) –
কারবালার ঘটনায় বেঁচে যাওয়া নবী পরিবারের সদস্যগনকে সাত্বনা দেয়ার পরিবর্তে ঈয়াযীদ কেন একটি বছর কারাগারে বন্দী করে রাখল ?
প্রশ্ন ১১) –
পুরো এক বছর বন্দীকালীন সময় ইমাম জয়নুল আবেদীনের (আঃ) হাত ও পায়ে কেন ২৪ ঘন্টা শিকলের বেড়ী পরিয়ে রাখা হইত ?
প্রশ্ন ১২) –
কেন হোসেনকন্যা সকিনাকে (সাঃআঃ) জেলখানার ভেতরেই কবর দিতে হইল ?
প্রশ্ন ১৩) –
নবী পরিবারকে কেন ঈয়াযীদ বন্দীদশা থেকে মুক্ত করতে বাধ্য হইল – সেই প্রেক্ষাপটটি জানাবেন কি ?
প্রশ্ন ১৪) –
মূয়াবীয়ার কুলাঙ্গার পুত্র ঈয়াযীদ নিশ্চয়ই শীয়া ছিল না , তাহলে নবী পরিবারর প্রতি এসব আচরন কি রাজকীয় মেহমানদারীর সংগায় পড়ে ?
প্রশ্ন ১৫) –
কারবালার ঘটনার পরে পুরো তিনদিন পর্যন্ত মদীনা শহরে অবাধে লুটপাট , সাহাবী হত্যা , বহু নারী ধর্ষণের অনুমতি ঈয়াযীদ কেন তার সৈন্যবাহিনীকে দিয়েছিল ?
প্রশ্ন ১৬) –
এই বেহিসাব নারী ধর্ষণের ফলে বহু নারী গর্ভবতী হয়েছিল , তাদের জন্য দায়ী কে ?
প্রশ্ন ১৭) –
মদীনার মসজিদ এ নবীকে কুলাঙ্গার ঈয়াযীদ কেন ঘোড়া রাখার আস্তাবল বানিয়েছিল ?
প্রশ্ন ১৮) –
পবিত্র ক্বাবা গৃহে ঈয়াযীদ কেন তার সৈন্যদেরকে দিয়ে আগুন লাগিয়েছিল ?
সর্বশেষ প্রশ্ন –
কারবালার হত্যাযজ্ঞের প্রধান নায়ক ঈয়াযীদ , মূয়াবীয়া ও আবু সুফিয়ান তাহলে কি শীয়া ছিল ?
সে সকল সুন্নি ভাইরা এই কথাটি বলে থাকেন যে ,
শীয়ারাই ইমাম হোসেনকে (আঃ) কারবালা প্রান্তরে হত্যা করেছিল !
দয়া করে উপরে উল্লেখিত প্রশ্নগুলির টু দি পয়েন্টে যৌক্তিক জবাবের প্রতীক্ষায় থাকলাম ।
প্রশ্নগুলোর টু দি পয়েন্টে যতক্ষন জবাব দিতে পারছেন না ততক্ষন এই চরম নির্মম রসিকতাপূর্ন কথাটি বলবেন না যে –
কারবালা প্রান্তরে ইমাম হোসেনকে (আঃ) বার ইমামীয়া শীয়ারা হত্যা করেছিল !
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × three =